বারীন ঘোষাল এমন এক কবি, স্টাবলিশমেন্ট যাকে গ্রাস করতে পারেনি


বৃষ্টি যখন ভিড় করে আসে
আঁখ রোশে
রেনিডে পায়ের তুলতুলে
তখন তমাকে চম্মক ট্রেনদোলনে
সমস্ত খুন ঢুকে তখন পড়া বইকে রাঙিয়ে দেয়
গোয়েন্দারা বেরিয়ে পড়ে ট্রেনশোলার ছদ্মে
আগুন যেমন ভালবাসে প্রতিবেশকে
বেডরুমের অ্যালার্ম বাজতে থাকে তোমার উলঙ্গে
তোমাকে আরো বেশি করে পাই যাদুঘর ভিজে গেলে
—যাদুঘর  / বারীন ঘোষাল

মৃত্যু আমাদের একেকটি ভাঙা কাচের টুকরোর সামনে দাঁড় করিয়ে দেয়৷ কখনও নির্লিপ্ত, নির্বিকার দাঁড়িয়ে থাকতে হয়৷
মৃত্যু, তোমাকে ঘৃণা করি,
যখন তুমি প্রিয় মানুষের কাছে যাও৷
ভালবাসি, যখন কাছে থাকো
আমার পাশে দাঁড়াও৷
কিছু মৃত্যু, আমাকে স্তব্ধ করে দেয়৷ আমি কঠিন বরফের মতো চুপ হয়ে যাই৷ ঠায় দাঁড়িয়ে থাকি৷ বুঝতে পারি না আমার কী করা উচিৎ! বারীন ঘোষালের মৃত্যু আমাকে এমনই রূঢ় বাস্তবতার ভাগাড়ে নিক্ষেপ করেছে৷ তার পর থেকেই অস্বস্তি হচ্ছে, চারিদিকে কেমন একটা গন্ধ গন্ধ পাচ্ছি৷ ভাগাড়ে গন্ধই তো থাকবে৷ তবুও, সুগন্ধ ছাড়িয়া দুর্গন্ধে কে থাকিতে চায় হে, কে থাকিতে চায়? জনাব ঘোষাল মৃত্যুবরণ করলেন৷ প্রথমত আমার খুব মন খারাপ হলো৷ কষ্ট হলো৷ তারপর, ক্রমাগত, প্রতিদিন, আমি অস্বস্তি অনুভব করলাম৷ দু’রাতে ঘুমুতে পেলাম না গোপনে! দুপুরে ভাতঘুমও উধাও! কিন্তু আমি এর কারণ জানি না কিছু৷




আমি আমার সম্বন্ধে কিছু বলব না। রুচিতে বাধে। আমার কোনো ঢাক নেই। অন্যেরা বলবে। একটা কথাই বলব, আমি বাংলা কবিতাকে ডিরেইল করতে এসেছি। আমি কবিতার ভিলেন। এখন লোকজন বলছে আমি ছেলেধরা। গ্রামে গঞ্জে ঘুরে ছোট কবিদের ধরে বেড়াই। তুমিও সাবধান থাকো।
—বারীন ঘোষাল

বারীন ঘোষাল কে? আমি কি জানি এই প্রশ্নের উত্তর? যদি বলি, জানি না, সেক্ষেত্রে যেমন উত্তর ঠিক; অপরদিকে যদি বলি, জানি, সেক্ষেত্রেও উত্তর ঠিক৷ কেননা আমার চোখে বারীন ঘোষাল প্রধানত একজন কবি; সম্পূর্ণ মুক্ত পরিসরে ‘নতুন-কবিতা’-নির্মাতা৷ তিনি লিখেছেন কবিতা, গল্প, উপন্যাস, গদ্য; করেছেন অনুবাদও৷

আমি তার খুব বেশি কবিতা অবশ্য পড়ার সুযোগ পাইনি৷ সব মিলে হয়তো একশ’র কাছাকাছি হবে৷ আর যদি ভুল না করে থাকি তাহলে দশ–পনেরোটি গদ্য পড়েছিলাম৷ তাঁর বিষয়ে আমার পড়াশুনা বলতে এ-ই৷ এটুকু পড়ে তো আর লেখক নিয়ে মূল্যায়ন করা যায় না; আর সে যোগ্যতাও আমার নেই৷ তাই ওদিকে আমি যাই না৷ সে যাই হোক, জনাব ঘোষালের কবিতা আমি কোথায় পড়েছি প্রথম, তা মনে করার চেষ্টা করলাম৷ বাংলাদেশের দুটো লিটল ম্যাগাজিনের কথাই শুধু মাথায় আসছে; দুটোই যশোর থেকে প্রকাশিত; ‘প্রতিশিল্প’ ও ‘জঙশন’৷ সম্ভবত এই দুটোতেই পড়েছিলাম৷ তারপর জঙশনে ধারাবাহিকভাবে, মানে প্রতি সংখ্যায় থাকতো তাঁর কবিতা/গদ্য৷ অন্তত গত ৪/৫ বছর ধরে এমনটা দেখে আসছি৷


আমি যতদূর জানি, কবি বারীন ঘোষাল লিটল ম্যাগাজিনের কবি৷ শুনেছি, দালালি-দলাদলির অশ্লীল সাংস্কৃতিক চর্চাতেও ওনার অংশগ্রহন ছিল না৷ কবির ওসব করতে নেই৷ কবি থাকেন উৎসুক জনতার আড়ালে৷

ওনাকে নিয়ে কিছু মানুষের ছোট ছোট স্মৃতিকথা পড়েছি অনলাইনে; তাতে করে অমনটা মনে হলো৷ বোধহয়, শিবের গীত অনেক হলো৷ এবার মূল কথায় আসি৷ যে কারণে এত কথা বলা সেটা হলো, তাঁর কবিতা আমার ভাল লাগত৷ না হলে তাঁর কবিতা চোখে পড়তেই পড়ে ফেলতাম কেন! তাঁর কবিতার সাথে আমি যে পরিচিত, এর সম্পূর্ণ কৃতিত্ব জঙশনের৷ নিয়মিত পড়তাম এবং অন্যকেও পড়াতাম৷ এই বছর থেকে জঙশনে আর থাকবে না তাঁর কবিতা! ভাবতেই কেমন ভয়ংকর শিহরণ তৈরি হচ্ছে! জানি না কেন, ভয় করছে৷ মনে হচ্ছে (যেন) আমার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা একজন মানুষ এত সহজে মরে গেলেন! আর দেখা হবে না জঙশনে? কথা হবে না কবিতায়?


কবি নাভিল মানদার একবার ফোন করে বললেন, ‘সাম্য জঙশনে তোমার এবারের কবিতাটির খুব প্রশংসা করেছেন বারীন দা৷ জানতে চেয়েছেন তোমার সম্পর্কে৷’
—শুনে ভাল লেগেছিলো৷
আজ চুপসে গেছি দাদা৷ প্রতি জঙশনে তো প্রায় পাশাপাশি ছাপা হতো আমাদের কবিতা৷ এখন ওই শূন্যস্থান কি ফাঁকাই থাকবে? এ অসম্ভব কি সম্ভব!

...............................................................................................
দ্রষ্টব্যঃ এই স্মৃতিকথামূলক মুক্তগদ্যটি কালকূট ওয়েব পত্রিকায় প্রকাশিত। সংযুক্ত ছবিটিও তাদের তৈরি।


0 comments: